coconut buy

ওজন কমানো সহ নারিকেল খাওয়ার বিভিন্ন উপকারিতা

নারিকেল সহজলভ্য একটি ফল। কাঁচা অথবা ছোট অবস্থায় একে ডাব এবং পাকার পর একে ঝুনা নারিকেল বলা হয়। ডাবের পানি অনেকের কাছেই প্রিয়। তেমনি চুলের যত্নে নারিকেল তেল আদি যুগ থেকে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। নারিকেল শাঁসের অনেকগুলি পুষ্টিগুণ রয়েছে।

নারিকেল দিয়ে অনেক মজাদার খাবার তৈরি করা হয়। নারিকেলের নাড়ু, নারিকেলের তৈরি সন্দেশ, হালুয়া, পিঠাপুলি, পায়েশ ইত্যাদি তার মধ্যে অন্যতম। আমাদের দেশে বিভিন্ন অঞ্চলে খাবার রান্নাতেও ব্যবহার করা হয় নারকেল । যেমন নারিকেলের সঙ্গে কাঁচা মরিচ ও চিংড়ি দিয়ে ভাজি একটি মজাদার খাবার। বর্ষায় এই নারিকেল শাঁসের আরেকটি খাবারের খুব প্রচলন রয়েছে। তাহলো খই-এর সঙ্গে এই শাঁসের গুঁড়া ও গুড় মিলিয়ে খাওয়া।

নারিকেল শাঁসের পুষ্টিগুণও অনেক বেশি। প্রতি ১০০ গ্রাম নারিকেলে আছে ৩৫৪ ক্যালরী, ৩৩ গ্রাম ফ্যাট, ২০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ৩৫৬ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম, ১৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট ও ৩.৩ গ্রাম প্রোটিন। এছাড়াও ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন বি-৬ ও বি-১২ আছে।

উপকারিতা :
১. ত্বক কোমল করে
২. চুল ভাল রাখে
৩. শক্তি যোগায়
৪. হার্ট ভালো রাখে
৫. ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণ করে
৬. ওজন কমায়
৭. দাঁত ও হাড় ভালো রাখে
৮. হজম সহায়ক

ত্বক কোমল করে:

ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রেখে ত্বককে নরম রাখতে সাহায্য করে নারিকেলের শাঁস। নিয়মিত এই শাঁস খেলে ত্বক কোমল ও সুন্দর হয়। এছাড়াও ত্বকে সহজে বয়স জনিত বলিরেখা পড়েতে দেয় না এই নারিকেল।

চুল ভাল রাখে:

চুলে নারিকেল তেল মাখলে ভাল থাকে এটা জানা কথা কিন্তু নিয়মিত নারিকেল শাঁস খেলে মাথায় খুশকি ও শুষ্কতা দূর হয় এবং চুল পড়াও বন্ধ হয়।

শক্তি যোগায়:

নারিকেলে অতিরিক্ত ক্যালরি থাকায় তাৎক্ষণিকভাবে শরীরে শক্তি যোগায়। তাই কাজের মাঝে ক্লান্তি আসলে বা হালকা খিদে পেলে নারিকেল শাঁস খান, সঙ্গে সঙ্গে কর্মউদ্দীপনা জেগে উঠবে।

হার্ট ভালো রাখে:

নারিকেল রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমিয়ে হার্টের সমস্যা দূর করে। এর মধ্যে যে ফ্যাটি এসিড রয়েছে তা কোলেস্টেরল বাড়ায় না বরং আথেরোসক্লেরোসিসের ঝুঁকি কমিয়ে হার্ট ভালো রাখতে সহায়তা করে।

ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণ করে:

নারিকেল রক্তের ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং ডায়াবেটিসজনিত কারণে শরীরের ক্ষতি রোধ করতে সাহায্য করে।

ওজন কমায়:

নারিকেল অতিরিক্ত ওজন কমাতে সহায়তা করে। নারিকেল খুব অল্প ক্যালোরিতেই মেটাবলিজম বৃদ্ধি করে অল্পক্ষণের মধ্যেই শরীরে শক্তি যোগায়। তাই নারিকেলের শাঁস খেলে সহসা ক্ষুধা লাগে না। সেক্ষেত্রে শরীরের ওজন কমাতে সহায়ক এই নারিকেল শাঁস।

দাঁত ও হাড় ভালো রাখে:

হাড়ের ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম শোষণ করতে সাহায্য করে নারিকেল এবং দাঁত ও হাড়ের গঠনেও ভূমিকা রাখে। অস্ট্রিওপোরেসিস, অস্ট্রিও আর্থারাইটিস, যে কোন হাড় সংক্রান্ত রোগের চিকিৎসায় নারিকেল শাঁস ওষুধ হিসেবে কাজ করে।

হজম সহায়ক:

হজম প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে এবং বিভিন্ন ভিটামিন, মিনারেল ও এমিনো এসিড শোষণ করে নিতেও সহায়তা করে নারিকেল।

এই সকল উপকার পেতে নারকেল খাওয়া জরুরি। তাই আপনাদের জন্য আমাদের এই আয়োজন। আমরা গ্রাম থেকে সংগ্রহ করে ভালো নারকেল আপনাদের দিয়ে আসছি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

If you like our product and post, Please share it on your social connection.

LinkedIn
Share
Instagram